বুধ. এপ্রি ১৪, ২০২১

Fortune News 24

ফরচুন নিউজ ২৪

রোহিঙ্গাদের জন্য তৈরী ভাসানচরে যা আছে

১ মিনিট পাঠের সময়

বাংলাদেশের দক্ষিণে সাগরের মধ্যে একটি পানি ছুঁই ছুঁই দ্বীপে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অনেককে আশ্রয় দেয়ার উদ্দেশে সরকার বড় ধরনের যে অবকাঠামো গড়ে তুলেছে, তা নিয়ে আলোচনা রয়েছে দেশে-বিদেশে। বঙ্গোপসাগরের বুকে গজিয়ে ওঠা এই দ্বীপ, যার নাম ভাসানচর, তা ওই অঞ্চলে নবগঠিত যেসব চর রয়েছে, সেগুলোর মধ্যে অন্যতম। তবে এই চরের বয়স মাত্র ২০ বছর। রোহিঙ্গা সংকট শুরুর কয়েক মাস পর থেকেই ভাসানচর জায়গাটি আলোচনায় চলে আসে।

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসে কক্সবাজারে আশ্রয় নেয়া এক লক্ষ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে ভাসানচরে স্থানান্তরের জন্য এরই মধ্যে তিন হাজার কোটি টাকা খরচ করে সেখানে বিভিন্ন ধরনের স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে।

কক্সবাজার থেকে এক লক্ষ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে সরিয়ে আনার লক্ষ্য নিয়ে ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে এক প্রকল্প গ্রহণ করে সরকার। এই প্রকল্পের নাম দেয়া হয়েছে আশ্রয়ণ-৩ প্রকল্প, আর এটি বাস্তবায়নের দায়িত্ব দেয়া হয় বাংলাদেশ নৌবাহিনীকে। এই প্রকল্পের পরিচালক কমোডর আবদুল্লাহ আল মামুন চৌধুরী জানান- ভাসানচরে সব ধরনের স্থাপনার নির্মাণ কাজ হয়েছে। এখানে যে কোনো সময় রোহিঙ্গাদের আনা যাবে। আমাদের তরফ থেকে সব কাজ শেষ হয়ে গেছে।

এই চরে এক লক্ষ রোহিঙ্গার জন্য ১২০টি ক্লাস্টার বা গুচ্ছগ্রাম নির্মাণ করা হয়েছে।সব মিলিয়ে ১,৪৪০টি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতিটি ঘরে রয়েছে ১৬টি কক্ষ, সামনে ৮টি এবং পেছনের দিকে আরও ৮টি। প্রতিটি পরিবারের রান্নার জন্য একটি করে চুলার জায়গা বরাদ্দ করা আছে। আর প্রতি ৮টি কক্ষের জন্য তিনটি টয়লেট এবং দু’টি গোসলখানা রয়েছে। প্রতিটি কক্ষে দুটো ডাবল বাঙ্কার বা দোতলা খাট রয়েছে। অর্থাৎ একটি কক্ষে চারজন থাকতে পারবেন। যদি একটি পরিবারে সদস্য সংখ্যা চারজনের বেশি হয়, তাহলে তাদের জন্য দুটো কক্ষ বরাদ্দ করা হবে। রান্নাঘর, গোসলখানা ও টয়লেটে পানির সরবরাহ রয়েছে। এর পাশাপাশি প্রতিটি ক্লাস্টারে একটি করে পুকুর রয়েছে। এসব পুকুরের গভীরতা ১০ ফুট। এসব পুকুরে পানি গৃহস্থালির কাজে ব্যবহার করা যাবে। প্রতিটি ক্লাস্টার একই আদলে নির্মাণ করা হয়েছে। সব ঘর দেখতে একই রকম। প্রতিটি ঘরের সামনে বেশ চওড়া রাস্তা রয়েছে। এসব রাস্তার প্রশস্ততা ২০ থেকে ২৫ ফুট। দেশের কোন গ্রামে সাধারণত এ ধরনের রাস্তা দেখা যায় না।

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের থাকার জন্য যেসব ঘর নির্মাণ করা হয়েছে, সেগুলো কক্সবাজারের শরণার্থী ক্যাম্পগুলোর তুলনায় যে অনেক ভালো, তাতে কোন সন্দেহ নেই। ভাসানচরে সৌর বিদ্যুতের মাধ্যমে আলোর ব্যবস্থা রয়েছে।

বড় ধরনের ঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের সময় এ চরের কী অবস্থা হবে? এ প্রসঙ্গে প্রকল্প পরিচালক কমোডর আবদুল্লাহ আল মামুন চৌধুরী জানান, গত ১৭১ বছরের ঘূর্ণিঝড় পর্যালোচনা করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত কোন ঘূর্ণিঝড় এই এলাকার উপর দিয়ে যায়নি। প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় যাতে ব্যবহার করা যায়, সেই লক্ষ্য নিয়ে ভাসানচরে পাঁচ তলা বিশিষ্ট ১২০টি শেল্টার হাউজ নির্মাণ করা হয়েছে। এসব শেল্টারহোম ঘণ্টায় ২৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাতাসের মধ্যেও টিকে থাকবে। জোয়ার ও জলোচ্ছ্বাসের হাত থেকে ভাসানচরকে রক্ষায় চারপাশে নয় ফুট উচ্চতার বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে। ভবিষ্যতে এই বাঁধ ১৫ ফুট পর্যন্ত উঁচু করা হবে।

প্রকল্প পরিচালক বলেন, অনেক শক্তিশালী ঝড় এই চরের উপর দিয়ে গেলে অবকাঠামোর ক্ষতি হতে পারে, কিন্তু মানুষের জীবন বিপন্ন হবে না। এই চর যাতে ভাঙনের কবলে না পড়ে, সেজন্য প্রায় তিন কিলোমিটার জুড়ে শোর প্রোটেকশন স্থাপন বা তীর রক্ষার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সমুদ্রের যে পাশ থেকে ঢেউ চরে আঘাত করে, সেই পাশেই শোর প্রোটেকশন দেয়া হয়েছে। শোর প্রোটেকশন থেকে ৫০০ মিটার ভেতরে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে।

ভাসানচরে ঢুকে কিছুদূর অগ্রসর হলেই একটি দৃষ্টিনন্দন বাড়ি সবার চোখে পড়বে। নৌবাহিনীর সদস্যরা জানান, এই বাড়িটি নির্মাণ করা হয়েছে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী ও উচ্চ পদস্থ সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তাদের জন্য। তারা যখন ভাসানচর পরিদর্শনে আসবেন, তখন ওই বাড়িতে বিশ্রাম নিতে পারবেন।
প্রসঙ্গত, প্রায় চার মাস আগে সাগরে ভাসমান ৩০৬ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করে ভাসানচরে নিয়ে রাখা হয়। সেখানে তারা নৌবাহিনীর তত্ত্বাবধানে আছেন।