মঙ্গল. অক্টো ২৭, ২০২০

Fortune News 24

ফরচুন নিউজ ২৪

শেখ হাসিনা: সংকটময় বিশ্বে একজন দিকনির্দেশক

১ মিনিট পাঠের সময়

এবছরের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে আমরা সবাই মিলে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের আয়োজনে যখন ব্যস্ত তখনই এই শতাব্দীর সবচেয়ে বড় মহামারী বিশ্ব মানুষকে বিচলিত করে তুলেছে। ফেব্রুয়ারি মাসের দিকে নানা গোপনীয়তা স্বত্ত্বেও আমরা জানতে পারি যে চীনের উহান শহর থেকে একটি জীবনঘাতি ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছে যার প্রতিষেধক চীনাদের পক্ষে বের করা সম্ভব হচ্ছে না। আজও অবস্থার কোন পরিবর্তন হয় নাই। এরই মধ্যে বাতাসের মাধ্যমে সংক্রমিত এই মরণ ভাইরাসটি সারা বিশ্বকে সয়লাব করে দিয়েছে।

কোটি কোটি মানুষ এর দ্বারা আক্রান্ত হয়েছে লক্ষ লক্ষ মানুষ জীবন হারিয়েছে। এরই মধ্যদিয়ে বাংলাদেশের মত মধ্যম আয়ের দিকে ধাবিত একটি দেশে এই সংক্রামক অন্যান্য দেশের মতই সাধারণ জীবনকে পর্যুদস্তু করে দিয়েছে।

আমরা হাজার হাজার বছর ধরে শুধু সংক্রামক ব্যাধি নয় বিদেশী তস্করদের আক্রমণে অতিষ্ঠ ও নির্মমভাবে পর্যুদস্তু হয়েছি। প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ মানুষ মানবসৃষ্ট সংকট ও অভাবের ফলে অনাহার অর্ধহারে রোগে, শোকে জীবন হারিয়েছে। অত্যাচারী শাসকদের লোভ লালসা ও লুটপাটের শিকার হয়ে মানব ইতিহাসের সমস্ত সময়টাই আমরা নুন আনতে পান্তা ফুরিয়ে যাওয়ার মত অভাব অনটনের মধ্যে জীবন যাপন করেছি।

এই দু:খ কষ্ট থেকে পরিত্রাণ দিতে বিংশ শতাব্দীর শেষাংষে ত্রাতা ও মুক্তিদাতা হিসাবে আভির্বূত হয়েছিলেন আধুনিক বাঙালি জাতি রাষ্ট্রের স্রষ্টা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বাংলাদেশের অজপাড়াগাঁয় গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় এক জনদরদী সমাজসেবী পরিবারে তার জন্ম। নিজেদের স্বচ্ছলতা আর্থিকভাবে অভাব থেকে তাদেরকে দূরে রাখলেও গ্রামের মানুষের নিরন্তন অভাব তাকে, তার পরিবারকে এমনভাবে ব্যথিত করে রেখেছিল যে এর থেকে মুক্তির পথ তিনি খুঁজছিলেন কায়োমনে। তারই ফলশ্রুতিতে জীবনকে উৎসর্গ করেছিলেন তার মানুষকে মুক্ত করে বিশ্ব মানবতার উন্নতি সাধণ করতে।

তারই ঘরে মায়ের কোল আলোকিত করে প্রথম কন্যা সন্তান জন্মগ্রহণ করেন শেখ হাসিনা। তিনিই পরবর্তীকালে স্বাধীন বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের প্রধান হিসাবে আজ বিশ্ববাসীর কাছে নন্দিত। বাল্যকাল থেকে দেখে এসেছেন তার পরম শ্রদ্ধাভাজন পিতা অত্যাচারী শাসকদের জুলুম ও নিগ্রহ সহ্য করে জেলখানায় কারারুদ্ধ থেকেও মানুষরে অধিকারের দাবি থেকে বিন্দুমাত্র পিছপা হননি।

জনসেবার ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে গিয়ে ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্টে পিতামাতা প্রিয় ৩ ভাই, ২ নবপরিণিতা ভ্রাতৃবধূ, একমাত্র চাচা ও আত্মীয় স্বজনসহ একই রাতে পরিবারের ১৮ জন সদস্যকে হারান। পরিবার-পরিজন হারানোর এই গভীর শোককে উতরিয়ে উঠার কোন উপায় মানব ইতিহাসে কারোও জানা নাই। এই অবস্থার মধ্যেও জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের জনগণকে সম্বল করে এই সব দেশদ্রোহী ঘাতকদের ও তাদের পৃষ্ঠপোষকদের বিরুদ্ধে সংগ্রামে অবতীর্ণ হন। দীর্ঘ ২৯ বছর নানাছলে, নানা কৌশলে সদ্যস্বাধীন বাংলাদেশকে তারা লুটপাট করে চলে। বাংলার মানুষের মুক্তির যে পথ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেখিয়ে গিয়েছেন সেই পথকে চিরতরে বন্ধ করার ও জনগণের প্রতি শোষণ ও অত্যাচারের সকল প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়ে ২০০৯ সালের প্রারম্ভে জননেত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্র ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন। সুপরিকল্পিত পরিকল্পনার মাধ্যমে তিনি সমস্ত দেশবাসীকে উন্নয়নের মহাসড়কে নিয়ে আসতে সক্ষম হন। গ্রাম-গঞ্জের ভূমিহীন, আবাসহীন নিরন্ন মানুষকে তাদের জীবন-জীবিকার ব্যবস্থার নতুন দ্বার উন্মোচন করেন। মানুষের দু-বেলার অন্নের সংস্থান নিশ্চিন্ত করেন। গৃহহীনের আবাসস্থল সরকারী উদ্যোগে ব্যবস্থা করেন।

বিশ্বের সকল প্রগতিশীল দেশের সাথে পাল্লা দিয়ে জীবনের সকল ক্ষেত্রে আইন করে নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠিত করেন। আমাদের মতো নদীবিধৌত উপসাগরও মহাসাগর বেষ্টিত জলাভূমি সম্পন্ন এলাকায় ও তিনি সকল মানুষের জন্য যাতায়াত ব্যবস্থা অর্থাৎ রাস্তাঘাট যানবাহনের চলাচেিনিশ্চিত করতে, নদীপথকে মসৃণ করার জন্য ড্রেইজিং সিস্টেম চালু করে নদ নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে এনে গ্রামীণ যোগাযোগকে আধুনিকীকরন করেন। অসচ্ছ্বল ও অভাবগ্রস্ত কর্মক্ষম বিধবা নারী, স্বামী পরিত্যক্ত মহিলাদের ও নি:সঙ্গ বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের জন্য সরকারী অনুদানের ব্যবস্থা করে তাদের জীবিকা ও আত্মমর্যাদা ফিরিয়ে দেন।

জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায়ই আজ প্রত্যেকটি রোগাক্রান্ত মানুষ সরকারী স্বাস্থ্য সেবার আওতায় বিনামূল্যে চিকিৎসা পাওয়ার সুবিধা ভোগ করছে। এই বছরের মধ্যে প্রত্যেক গৃহহীনের জন্য গৃহের বন্দোবস্ত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার।

বাংলাদেশের প্রত্যেকটি মানুষ যাতে সম্মান ও মর্যাদা নিয়ে জীবন যাপন করতে পারে, তাদের জন্য আইনের শাসন নিশ্চিত হতে পারে ও তারা ন্যায় বিচার হতে বঞ্চিত না হয় তার জন্য বিচার বিভাগকে পৃথক করে জনগণের মধ্যে সুবিচারের আস্থা সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছেন।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরও লুটেরা, সামরিক জান্তার প্রত্যক্ষ মদদে দেশটিকে খুন, রাহাজানি, লুট, সম্পত্তি জবরদখল সহ নানা অনাচারের অভয়ারণ্যে পরিণত করে মোস্তাক, জিয়া এরশাদ ও তাদের রক্ত ও অর্থ  লোলুপ অনুচরেরা জাতির নৈতিক চরিত্রকে সমূলে বিনষ্ট করে পরাধীনকালের অবয়বে নিয়ে যাওয়ার যে রাস্তা খুলে দিয়েছিল তার থেকে দেশকে সভ্যতা, আত্মমর্যাদা, দেশপ্রেম ও আইনের শাসনের সুফলের দিকে নিয়ে এসে দেশে আজ শান্তির সুবাতাস বইছে।

এই অবস্থাকে আরও উন্নত করার প্রত্যাশা নিয়ে জননেত্রী আজও প্রতিদিন বাংলার জনগণকে সম্বল করে তার সরকারের সকল কর্মচারী-কর্মকর্তাদের সম্পূর্ণ সহযোগীহতা নিয়ে দেশকে নতুন পথে নিয়ে এসেছেন।

আগামীদিনের বাংলার মানুষের প্রত্যাশা এই হোক যে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তার মায়াবী ভালোবাসা ও দেশপ্রেম এই জাতিকে বিশ্বের দরবারে সম্মানীত আসনে উপস্থাপন করবে। জনদরদী এই মহীয়সী নারী রাষ্ট্রনায়কের দীর্ঘায়ু কামনা করি। বাঙালির দুর্দিনের কান্ডারী হিসাবে তার আভির্বাব আমাদের মানুষকে নতুন জীবনের সন্ধান দিয়েছে। কৃতজ্ঞ বাঙালি কোভিড-১৯ এর এই বিপদের দিনে তার পাশে থেকে বাংলার মানুষের স্বপনকে বাস্তবায়নে রূপ দিতে পরিশ্রম করে যাচ্ছে। পরম করুণাময় আল্লাহ তায়ালা আমাদের সহায় হোন।

লেখক : সভাপতি, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ।